avertisements 2

৪৯তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে অস্ট্রেলিয়া যুবলীগের বক্তারা

বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে অবিচল থেকে শেখ মনিই সঠিক ছিলেন

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি
প্রকাশ: ১২:০০ এএম, ১৭ নভেম্বর, বুধবার,২০২১ | আপডেট: ০১:৪০ এএম, ৪ ডিসেম্বর,শনিবার,২০২১

Text

গত ১৪ই নভেম্বর, রোববার, ২০২১, অস্ট্রেলিয়ার সিডনির রকডেলে এক আরম্বরপূর্ন পরিবেশে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের ৪৯তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন করে অস্ট্রেলিয়া যুবলীগ। সংগঠনের সভাপতি মোস্তাক মেরাজের সভাপতিত্বে ও সাধারন সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল নোমান শামীমের সঞ্চালনায় এ মিলন মেলায় সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ অংশ নেন। প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য যুবনেতা বাবু সুভাষ চন্দ্র হাওলাদার। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সর্বজনাব গামা আব্দুল কাদির, বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারন সম্পাদক ব্যারিস্টার নির্মল্য তালুকদার, ঢাকা মহানগর দক্ষিন ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সাবেক ছাত্রনেতা ও অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগের উপদেস্টা শফিকুল আলম, অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি এমদাদ হক।

বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সম্মানিত প্রেসিডিয়াম সদস্য যুবনেতা বাবু সুভাষ চন্দ্র হাওলাদার ভার্চ্যুয়ালী বাংলাদেশ থেকে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন, তিনি বলেন, কিংবদন্তি যুবনেতা শেখ ফজলুল হক মনি'র প্রতিষ্ঠিত এই ঐতিহ্যবাহী যুবসংগঠন বর্তমান মানবিক চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও সংগ্রামী সাধারন সম্পাদক মোঃ মইনুল হোসেন খান নিখিলের বলিষ্ঠ নেতৃত্বে শুধু ঐক্যবদ্ধই না, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ আজ তার মানবিক কাজের মাধ্যমে সবার মন জয় করেছে।  তিনি আরো বলেন,আগামীতেও জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পৃথিবীকে চমকে দেয়া উন্নয়নমূলক কাজের গতির সাথে আধুনিক বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে দেশে ও বিদেশে শক্তিশালী যুবলীগের বিকল্প নেই। তিনি উন্নত বিশ্বের কাতারে দাঁড়াতে উন্নয়নমুখী, জনবান্ধব, অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে তুলতে জোর দেন। এসময় অস্ট্রেলিয়া যুবলীগের পক্ষ্য থেকে বক্তব্য রাখেন যুগ্ন-সাধারন সম্পাদক অপু সারোয়ার, সাংগঠনিক সম্পাদক মহীউদ্দীন মহী, একেএম হাফিজ, ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক আলী আশরাফ হিমেল, অস্ট্রেলিয়া ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও অস্ট্রেলিয়া যুবলীগ সদস্য মুয়ীদুজ্জামান সুজন, খন্দকার আরেফীন, ছাত্রলীগ নেতা সাইফুল ইসলাম, তরুন আওয়ামী লীগ নেতা খন্দকার তরিকুল হাসান লিপুসহ অন্যান্য যুবনেতারা। নেতৃবৃন্দ বলেন, অস্ট্রেলিয়া যুবলীগের বিরুদ্ধে চক্রান্ত করে লাভ হবে না। জামাত-শিবির ও বিএনপির অপরাজনীতির বিরুদ্ধে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ সজাগ ছিলো এবং থাকবে, সেই সাথে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে মানবিক ও মেধা ভিক্তিক সামাজিক ও রাজনৈতিক কাজে অস্ট্রেলিয়া যুবলীগ তার সমস্ত শক্তি নিয়োগ করবে। প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর এই সভায় কেন্দ্রীয় কমিটির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক কাজী সারোয়ার হোসেন ও উপ-আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক সফেদ আশফাক তুহিনকে বিশেষ ধন্যবাদ জানানো হয় সাংগঠনিক দক্ষতায় অস্ট্রেলিয়া যুবলীগের সাথে কেন্দ্রীয় যুবলীগের সম্পৃক্ততা কাজের পরিধি বাড়িয়ে আরো বেগবান করে তুলতে কার্য্যকর ভুমিকা রাখতে।

এসময় অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি এমদাদ হক বলেন, কিছু না পেয়েও অস্ট্রেলিয়ার যুবনেতারা তাদের ত্যাগ ও মেধা দিয়ে দল চালাচ্ছে, যেমন লাখো নেতা-কর্মীরা কিছুর আশা না করেও বঙ্গবন্ধু ও জননেত্রী শেখ হাসিনার জন্য প্রান বিলিয়ে দিয়ে বাংলাদেশকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। অস্ট্রেলিয়া বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারন সম্পাদক ব্যারিস্টার নির্মল্য তালুকদার অস্ত্রেলিয়া যুবলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী আয়োজনের এই বিশেষ আনন্দঘন দিনে ৭৫এর ১৫ আগস্টের কালো রাতে নিহতদের স্মরণে বলেন, বঙ্গবন্ধু পরিবারের নির্মোহ আত্মত্যাগ আজকের স্বাধীনতা, আজকের বাংলাদেশ ও তার উন্নয়ন। অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়তে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার দিকেই যুবলীগকে মনোনিবেশ করায় জোর দেন তিনি। সাবেক ছাত্রনেতা শফিকুল আলম বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠাকালীন বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বলেন, শেখ মনির মতো বিচক্ষন ও মেধা ভিক্তিক যুবনেতা ছিলেন বলেই আজ এতবড় একটি সংগঠন সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়েছে। তিনি শেখ মনির জীবন ও ১৫ই আগস্টের নির্মম হত্যাকান্ডের বিভিন্ন দিক আলোচনা করেন। তিনি বলেন,যুবনেতা শেখ মনি অনেক দিক চিন্তা করেই এই সংগঠনটি তৈরি করে, আর এইখানে একজন মুক্তিযোদ্ধা গেরিলা অধিনায়ক হিসেবে স্বাধীনতা যুদ্ধের সময়ে বিশেষায়িত মুজিব বাহিনীর অভিজ্ঞতা ও কর্মপরিধি উনাকে চালিত করেছে, সেই সাথে বাংলাদেশে একটি জনপ্রিয় দৈনিক পত্রিকা চালনা করে তিনি রীতিমত তাক লাগিয়ে দেন। সর্বজনাব গামা আব্দুল কাদির তার প্রধান অতিথির বক্তব্যে ঐক্যবদ্ধ এই অস্ট্রেলিয়া যুবলীগের গত প্রায় ৯ বছরের কাজের পরিধি নিয়ে বলেন, স্বাধীনতা বিরোধীদের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলতে অস্ট্রেলিয়া যুবলীগ সবচেয়ে বেশী অবদান রেখেছে। এসময় তিনি বঙ্গবন্ধুর অসাম্প্রদায়িক আদর্শের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন। সাধারন সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল নোমান শামীম বলেন, ১৯৭২-এ বঙ্গবন্ধুকে আকড়ে ধরে, বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে অবিচল আস্থা রেখে যুবলীগের কিংবদন্তি প্রতিষ্ঠা চেয়ারম্যান শেখ ফজলুল হক মনি সঠিকতম বিচক্ষন সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন বলেই আজ বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ উপমহাদেশের সবচেয়ে বড় যুবসংগঠন। আর যারা জাতির পিতার নীতি-আদর্শ ও সিদ্ধান্তের সাথে বেঈমানী করেছিলো, তারা আজ ইতিহাসের আস্তাকুড়ে নিক্ষিপ্ত হয়েছে। সভাপতির বক্তব্যে সংগঠনের সভাপতি মোস্তাক মেরাজ বলেন, অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী যুবলীগ গত দশ বছরের পথচলায় অভিজ্ঞ ও পরিপুষ্ট। সংগঠনকে আরো শক্তিশালী করে কেন্দ্রের সাথে অস্ট্রেলিয়ার যোগসূত্র আরো শক্তিশালী করার আহবান ও প্রত্যয় ব্যক্ত করে, সবাইকে নিয়ে ৪৯-তম মুহুর্মুহু স্লোগানের মধ্য দিয়ে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর কেক কেটে দিনটি উদযাপন করেন। এসময় অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশ মিডিয়া ও প্রেস ক্লাবের সভাপতি মোঃ রহমতুল্লাহ সহ  অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী যুবলীগের বিপুল সংখ্যক নেতা কর্মী উপস্থিত ছিলেন।

বিষয়:

আরও পড়ুন

avertisements 2