avertisements 2

সন্তানদের শিক্ষিত করে নিঃসঙ্গ হচ্ছেন বাবা-মা

ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশ: ১২:০০ এএম, ১৮ জানুয়ারী,বৃহস্পতিবার,২০২৪ | আপডেট: ০৩:১৭ পিএম, ২৯ ফেব্রুয়ারী,বৃহস্পতিবার,২০২৪

Text

রাজধানী ঢাকার ধানমন্ডির বাসিন্দা নওরোজ আলম চৌধুরী। তিনি চাকরি থেকৈ অবসরে গেছেন ২০১২ সালে, নিজ ফ্ল্যাটে থাকেন স্ত্রীসহ। তাদের একমাত্র ছেলে নরওয়ের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, ছেলের পরিচয় নিয়ে গর্ব করলেও একাকীত্বের হতাশা কণ্ঠে তিনি বলেন, আমার একমাত্র ছেলে নরওয়ের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক। পরিচয় দিতে গর্বে বুকটা ভরে যায়। ছেলেকে যুক্তরাষ্ট্রে পড়তে পাঠিয়েছিলাম এইচএসসির পরই। সেখানে মাস্টার্স শেষ করে নরওয়েতে ডক্টরেট করলো। এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দিলো।

তিনি বলেন, ছেলে নরওয়েতেই বিয়ে করে। বউমা একই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, ভারতীয়। আগে প্রতিবছর দেশে আসতো। কিন্তু এখন আর সময় পায় না। আমরা বছরে একবার যাই। মাসখানেক থেকে চলে আসি। এই একটা মাসই যেন জীবন। বাকি ১১ মাস অপেক্ষা। করোনার সময় আমার একটা নাতি হয়। কিন্তু অবস্থা এমন ছিলো যে যেতেও পারিনি।

রাজধানীর ধানমণ্ডি লেকে ভোরবেলা হাঁটতে বের হন অনেকেই। নানা বয়সী স্বাস্থ্য সচেতন মানুষের দেখা মেলে। এরমধ্যে তাকওয়া মসজিদের পাশে একত্রে হাঁটা শেষে আড্ডায় মেতে ওঠেন ৮-১০ জন। প্রায় সবার বয়স ৬০ থেকে ৮০ ঘরে। প্রত্যেকের সন্তানই থাকেন দেশের বাইরে।

এক প্রশ্নের জবাবে এই দম্পতি বলেন, শেষ বয়সটা এভাবেই কাটাতে হবে। আমাদের দেখাশোনার মানুষ আছে দুইজন। কিন্তু রক্তের সম্পর্কের কেউ নাই। ভয় হয় আমাদের একজন চলে গেলে আরেকজনের একা কীভাবে কাটবে। মাঝে মাঝে এমন একা লাগে যে কথা বলার জন্য কান্না পায়। আর অসুখ তো লেগেই আছে।

শিক্ষা ও স্বাচ্ছন্দ্যের জন্য বর্তমানে বাংলাদেশের অনেক উচ্চবিত্ত পরিবারের সন্তানই পাড়ি দিচ্ছেন বিদেশে। আর মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তানদের অধিকাংশের গন্তব্য রাজধানীসহ বিভিন্ন জেলা শহর। এদের অধিকাংশই আর ফিরছেন না নিজ বাড়িতে। সেটেল হচ্ছেন বিদেশে বা বড় শহরে। বাবা-মায়েরা সন্তানকে লেখাপড়া শিখিয়ে তৃপ্তির ঢেকুর তুললেও জীবন সায়াহ্নে এসে হয়ে পড়ছেন একা। সন্তানদের মানুষ করতে গিয়ে সারা জীবন কষ্ট করার পর শেষ জীবনে এসে একাকীত্বের যন্ত্রণা মেনে বাধ্য হচ্ছেন তারা।

রংপুর জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক আমিনুল ইসলামের এক ছেলে, এক মেয়ে। মেয়ে ব্যাংকে চাকরি করে, স্বামীসহ থাকে ঢাকায়। ছেলে একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তা। ছেলে-মেয়েকে নিয়ে গর্বের অন্ত নেই আমিনুল ইসলামের। তিনি বলেন, ছেলে-মেয়েকে মানুষ করতে পেরেছি- এটাই আমার তৃপ্তি। বাচ্চা দুইটা যখন এইসএসসি পাস করে সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ পেল, তখনই আমি ওদের মাকে বলেছিলাম, ছেলে-মেয়ে যদি মানুষ হয় তাহলে এই বাড়িতে থাকা শেষ। আর যদি শিক্ষিত-প্রতিষ্ঠিত না হতে পারে তাহলে আবার এই বাড়িতে ফিরে আসবে।

অন্যদিকে নিম্নবিত্ত পরিবারের বাবা-মায়েদের অবস্থাও প্রায় একইরকম। দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলায় একা থাকেন শিউলি আক্তার। তার স্বামী সৌদি আরবে কাজ করতেন। সেখানেই দুর্ঘটনায় মারা গেছেন প্রায় ছয় বছর আগে। শেষ দেখাটাও হয়নি। এখন একমাত্র ছেলে থাকে ঢাকায়। তিনি বলেন, কি করবো, কন? ব্যাটায়তো ঢাকায় থাকতে বলে। কিন্তু ঢাকায় বেশিদিন ভালো লাগে না। এলাকায় না থাকলে মন টেকে না। ব্যাটা চাকরি করে টাকা পাঠায়, তাই দিয়ে চলি। অনেক কষ্ট কইরা মানুষ করছি। এখন চাকরি না করে আমার জন্য বাড়িতে চলে আসুক সেটাও চাই না।

তিনি আরো বলেন, আমার বাতের ব্যাথা। ব্যাথা উঠলে একটু মালিশ করলে আরাম হয়। ঈদে যখন ব্যাটা আসলো, রাতে ব্যাথা উঠলো বউ মালিশ করে দিলো। কিন্তু এখন রাতে ব্যাথা উঠলে মুখ বুজে থাকি।

আমেরিকা প্রবাসী ইফতাখারুল আলম বলেন, বাবা-মাকে একা দেশে রেখে আসতে কখনই চাইনি। তাদের এখানে এনে রাখতে চাই। তারা থাকতে পারেন না। হাঁপিয়ে ওঠেন। আমার সারা জীবন আমি স্বপ্ন দেখেছি নিজেকে প্রস্তুত করেছি দেশের বাইরে সেটেল করবো। এখন আমি বাবা-মায়ের জন্য দেশে ফিরে যেতেও পারছি না। বাবা-মায়ের কষ্ট হয় এটা জানি। বৃদ্ধ বয়সে একা থাকাটাও কষ্টকর কিন্তু আমি যে নিরুপায়।

ঢাকায় একটি কোম্পানির বিক্রয় প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেন ইলিয়াস হোসেন। তিনি বলেন, বাড়িতে থাকতে তো চাইছিলাম। নিজের বাড়িতে থাকতাম। বাড়ি ভাড়া লাগতো না। কিন্তু কাজ জোটাতে পারলাম না। তাই পরিবার নিয়ে ঢাকায় থাকি। বাবা-মা এলাকায় একা থাকে। আমার তিন বোনের সবার বিয়ে হয়ে গেছে। বাবা-মাকে একা রাখতে বাধ্য হয়েছি।

উচ্চবিত্ত, মধ্যবিত্ত কিংবা নিম্নবিত্ত- কোনো মা-বাবাই শেষ বয়সে এসে নতুন পরিবেশে যেতে চান না। অন্যদিকে শিক্ষা, চাকরি কিংবা আধুনিক জীবন- যে কারণেই হোক সন্তানরা শহর বা বিদেশমুখী হচ্ছেন। ফলে নিঃসঙ্গতায় ভুগছেন বৃদ্ধ বাবা-মা। শেষ বয়সে মোবাইল কিংবা ইন্টারনেটে সন্তান, নাতি-নাতর মুখ দেখে ও স্বজনদের ঘুরতে আসার অপেক্ষায় সময় কাটে তাদের।

শহরমুখী হওয়ার এই প্রবণতা উঠে এসেছে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) ও জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিলের (ইউএনএফপিএ) এক গবেষণাতেও। এতে দেখা যায়, ঢাকা ও আশপাশের এলাকায় (মেগাসিটি) প্রতিদিন নতুন ১ হাজার ৭০০ মানুষ যুক্ত হয়।

এ বিষয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকল্যাণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক তৌহিদুল হক বলেন, আমাদের সমাজে বাবা-মায়ের শেষ সময়ে সন্তান পাশে থাকতে পারছে না বা দেখভাল করতে পারছে না। কিন্তু তাতে তো মানুষের স্থান পরিবর্তনে ভাবনাটা থেমে নেই। চাকরি, শিক্ষা ছাড়াও নানা কারণে স্থান পরিবর্তন করতে হচ্ছে। কিন্তু বিষয়টি আমরা স্বাভাবিকভাবে নিতে পারছি না। কারণ আমাদের সামাজিক বা রাষ্ট্রীয় কোনো ব্যবস্থা নেই। অভিভাবক একা থাকছেন, তিনি কোথায় থাকবেন? দেখভালের লোক না থাকলে চিকিৎসার ব্যবস্থা কি হবে, খাবারের ব্যবস্থা কি হবে- এই ব্যাপারগুলো নিয়ে দুশ্চিন্তার মধ্যে থাকতে হয়। সমাজে নির্ভরতার সম্পর্ক তৈরি করা সম্ভব হয়নি। যা আমাদের আঘাত দেয়। ফলে সন্তান যখন পাশে থাকে না তখন অভিভাবকদের মধ্যে একাকীত্ব-হতাশা কাজ করে। সারা বিশ্বেই প্রবীণ জনগোষ্ঠী বাড়ছে। যার কারণে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ রাষ্ট্রীয় কিছু কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। আমাদের এখানেও কিছু আছে কিন্তু পর্যাপ্ত নয়। আজ থেকে ৩০ বছর আগে বসবাসের যে ধারণা ছিল সেটি পরিবর্তন হয়েছে। সামনেও হবে। এখন যারা নবীন আছেন তাদের আত্মনির্ভশীলতার শিক্ষা দেয়া হয়েছে। সেক্ষেত্রে প্রবীণদের জন্য প্রাতিষ্ঠানিক কার্যক্রম নেয়া উচিত। অন্যথায় এই ধরনের আবেগগত জটিলতায় পড়তে হবে।

বিষয়:

আরও পড়ুন

avertisements 2