avertisements 2

শামীম ওসমানও ‘আউট’

ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশ: ১২:০০ এএম, ১৩ নভেম্বর,শনিবার,২০২১ | আপডেট: ০৪:১৯ এএম, ৭ ডিসেম্বর,মঙ্গলবার,২০২১

Text

সেটা ছিল ১৯৮৭ সালের অক্টোবর মাস। সবার মাঝে তখন বইছে ক্রিকেট উন্মাদনা। ওয়ান ডে ক্রিকেট তখন এতটাই জনপ্রিয় যে নগরীর মহল্লায় মহল্লায় রাস্তার উপরে ব্যাট বল হাতে তরুণদের দেখা যেত ক্রিকেট খেলতে। এরমধ্যে বাংলাদেশ টেলিভিশনের বদান্যতায় কোলকাতা ইডেন গার্ডেন মাঠে সরাসরি ভারত-পাকিস্তান ওয়ান ডে ক্রিকেটে সেলিম মালিক ঝড়ে ভারত হারের ঘটনা যেন গোটা বাংলাদেশকেই প্রকম্পিত করে দেয়।

আলম খান লেন ও পার্শবর্তি এলাকার তরুণ ছেলেদের নিয়ে আরিফুজ্জামান টিপু, শহীদ সারোয়ার মল্লিকের নেতৃত্বে গড়ে তোলা হয় ক্রিয়েটিভ স্পোর্টিং ক্লাব। কো-অর্ডিনেশনের দায়িত্বে ছিলাম আমি। প্রথম দিকে টিপু শহীদ প্রশিক্ষণের দায়িত্বভার নিলেও পরে গলাচিপার অশোক দা ক্লাবের অফিসিয়াল কোচ মনোনীত হন।

শুক্রবার আসলেই নিজেদের ছেলেদের মুন্সীয়ানা যাচাই করতে আমরা টিম নিয়ে চলে যেতাম বাটা কোম্পানির মাঠ, মদনগঞ্জ সোনাকান্দা মাঠ, মাঝে মধ্যে রিকাবি বাজার মাঠ। দিনভর সীমিত ওভারের ম্যাচ খেলে আমরা সন্ধ্যায় ফিরে আসতাম নিজ মহল্লায়। রিয়াদ, রিফাত, বিপ্লব, শিবলি, সজল, রেজু, আব্বাস, জামাল, কামাল, মাকসুদ, তুষার, তুহিন, রানা, রুবেল, মনা, আরিফ, বাপ্পি, ওয়াহিদ মল্লিকসহ আরো কতোজন যে ক্রিকেটে তাদের মুন্সিয়ানা দেখিয়েছে তার হিসাব নাই।

আমাদের প্রতিটি সেশনে অবধারিতভাবে যে ছেলেটি সার্বক্ষনিক আমাদের সাথে লেগে ছিল তিনি হলেন এই তানভীর মাহমুদ। এমন ক্রিকেট পাগল ছেলে আমাদের দেশে কমই আছে। দেশের ক্রিকেটের কিংবদন্তী দুলু আফেন্দির ইস্টার্ন স্পোর্টিং ক্লাবের মাধ্যমে তার ক্রিকেটে আসা। ক্রিকেট মাঠ ছাড়তে পারবে না বলে বিগত ৩২ বছর যাবত তানভীর মাহমুদ ক্রিকেটে আম্পায়ারিং করে যাচ্ছেন। আমরা মোহামেডানের প্রয়াত হাবিবুর রহমান হাবিব, দুলু আফেন্দি, ধারা ভাষ্যকার আতাউল হক মল্লিকক ও এ জেড এম ইসমাইল বাবুলকে তানভীর গুরুজন হিসেবে সম্মান করেন।

তানভীরকে দুইটা জিনিস নিয়ে কখনো আপোষ করতে দেখা যায়নি। ১. তার নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ব্যাপারে কেউ কটুক্তি করলে ২. আম্পায়ারিং এর ক্ষেত্রে। একবার শামীম ওসমান এমপিকেও তিনি একটি এলবিডব্লিউ আউট দিয়ে সোজা সাজঘরে ফেরত পাঠিয়েছেন। তানভীর মাননীয় সাংসদকে প্রদর্শনী ম্যাচে আউট না দিলেও পারতেন।

বিষয়:

আরও পড়ুন

avertisements 2