avertisements 2

অস্ট্রেলিয়াজুড়ে পবিত্র রমজান মাস শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: ১২:০০ এএম, ২ এপ্রিল,শনিবার,২০২২ | আপডেট: ০৫:২৮ এএম, ২০ মে,শুক্রবার,২০২২

Text

বিশ্বের অন্যান্য স্থানের অস্ট্রেলিয়াতে  পবিত্র রমজান শুরু হয়েছে। চন্দ্রমাস গণনা অনুযায়ী প্রতি বছর আরবী বছরের ৯ম মাসে রমজান আসে। এই মাসে সিয়াম সাধনা করা ইসলামের পাঁচটি মৌলিক স্তম্ভের একটি। সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত পানাহার থেকে বিরত থেকে মুসলিমরা আল্লাহর সন্তুষ্টি কামনায় রোজা পালন করে।


প্রতিবারের ন্যায় এবারও রমজানে মুসলিমদের সংগঠনগুলোর পক্ষ থেকে নানা আয়োজন হচ্ছে। মসজিদগুলোতে ইফতার, তারাবি ও বিশেষ বয়ানের ব্যবস্থা থাকছে। এদিকে, আল্লাহর নৈকট্য লাভের জন্য সবাই রোজা রাখলেও কোনো দেশে বেশি সময় আবার কোনো দেশে কম সময় রোজা ব্রত পালন করতে হয় সূর্যের সঙ্গে সময় মিলিয়ে। এতে বিস্তর পার্থক্য দেখা গেছে রোজার সময়ের।


অস্ট্রেলিয়ার  বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে বেশির ভাগ মুসলমান আজ ২ এপ্রিল শনিবার  থেকে রোজা রাখা শুরু করেছেন। স্থানীয়ভাবে চাঁদ দেখা না-দেখা নিয়ে মতপার্থক্যের কারণে অস্ট্রেলিয়া প্রায় প্রতিবছরই দুই দিনে রোজা রাখা এবং ঈদ করা হয়। অভিবাসী মুসলমানদের অনেকেই নিজ নিজ দেশের সঙ্গে মিল রেখে রোজা রাখেন এবং ঈদ উদযাপন করেন।বেশির ভাগ বাংলাদেশি  মূলত  মুনসাইটিং অষ্ট্রেলিয়ার নির্দেশনা অনুসরন করে থাকে। মুনসাইটিং অষ্ট্রেলিয়ার ৩ এপ্রিল রবিবার  থেকে রমজান মাস শুরুর ঘোষনা দিয়েছে।

 

অন্যদিকে মধ্যপ্রাচ্য অভিবাসী নিয়ন্ত্রিত মসজিদে গতকাল  রাতেই প্রথম তারাবি নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। সেই অনুযায়ী শনিবার থেকে রোজা রাখা শুরু করেছেন অনেকেই। এরা মূলত অষ্ট্রেলিয়ান ন্যাশনাল ইমাম কাউন্সিলের নির্দেশনা অনুসরন করে থাকে।


অস্ট্রেলিয়া জুড়ে পবিত্র রমজান মাসে মুসলিম প্রধান সাবারবগুলোতে অন্য রকম আবহ তৈরি হয়ে যায়। নামাজিদের সংখ্যা বেড়ে যায়। মুসলিমপ্রধান এলাকায় হালাল গ্রোসারিগুলোতে চলে নানান পণ্যের বিক্রি।বিশেষ করে সিডনির ল্যাকেম্বায় বাংলাদেশী বংশোদ্ভুতদের আধিক্য চোখে পড়ার মতো। আর তাইতো বিকেল থেকেই বসে ইফতারির বিশেষ স্টলগুলি। রেইলওয়ে প্যারেডে প্রায় সবগুলি বাঙ্গালী দোকানের সামনেই ইফতারির টেবিল সাজানো দেখা যায়। কেউ হালীম বিক্রী করছে, কেউ বুট, বেগুনী, গুমনি, আলুচপ, জালিকাবাব, বিভিন্ন রকম বেসনে ভাজা খাবার, চিকেন ফ্রাই, জিলাপী, বিভিন্ন রকম মিষ্টিসহ রকমারি ইফতারের সমারোহ।দিনের বেলা বাঙ্গালীদের ইফতারের বেচাকেনা যেমন চোখে পড়ার মতো, তেমনি রাতের ল্যাকেম্বাও সম্পূর্ণ ভিন্ন। রাস্তায় রাস্তায় বার্বিকিউর বড় বড় চুল্লি বসিয়ে বিভিন্ন ধরনের বার্গার বিক্রি হয়েছে পুরো রোজার মাসে এখানে। পাশে চলেছে মিডেল ইস্টার্নদের অতি পছন্দনীয় গাজরের জুসের বিকিকিনি। ইফতারের পর শুরু হয়ে এই মেলা চলে সেহেরির সময় পর্যন্ত।


বাংলাদেশি আরব, পাকিস্তানি, ভারতীয়  প্রবাসীরা পবিত্র রমজান মাসে কাজ কমিয়ে ইবাদতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। শেষ ১০ দিনে মসজিদে ইতিকাফে প্রবাসীদের ভিড় দেখা যায়। মসজিদের ইফতার দেওয়া ও রোজাদারদের খেদমতে অনেকে স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে কাজ করতে দেখা যায়। 

অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন, বিরোধী দলীয় নেতা অ্যান্থোনি অ্যালবানিজ পবিত্র মাহে রমজানের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।
 

বিষয়:

আরও পড়ুন

avertisements 2