Main Menu

করোনা আপডেট

রাশেদুল ইসলাম 

আজ ২৮ মার্চ, ২০২০ । সকাল ৯.৪৫ । আমার সামনে বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসের তথ্যচিত্র ।  তথ্যচিত্র অনুযায়ী এখন পর্যন্ত পৃথিবীর করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মোট দেশের সংখ্যা ১৭৭ । মোট আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৫ লক্ষ ৯৭ হাজার ৭২ জন ।   মৃতের মোট সংখ্যা ২৭ হাজার ৩ শত ৬০ (সুত্রঃ জন্স হপকিন্স ইউনিভার্সিটি।) বাংলাদেশে মোট আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৪৮ । মৃত্যু ৫ (আইইডিসিআর)। একই  সময়ে পৃথিবীর মোট লোকসংখ্যা ৭৭৭ কোটি ৩৮ লক্ষ ৪৬ হাজার ৫ শত ২০ (সুত্রঃ ওয়ার্ল্ডওমিটার) । এই তুলনামুলক চিত্রে এটা পরিস্কার যে, পৃথিবীর মোট জনসংখ্যার তুলনায় করনাভাইরাসে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা একেবারেই হাতে গোণা । খুবই নগণ্য । কিন্তু আর এক   বাস্তবতা ভিন্ন । মাত্র মাস তিনেক আগে চীন থেকে যাত্রা শুরু করে এই করোনাভাইরাস । এই অল্প সময়ে একের পর এক দেশ অতিক্রম করে ইতোমধ্যে ১৭৭ টি দেশে বিস্তার ঘটেছে এই ভাইরাসের । আতংকের কথা বলা হলে, অবশ্যই বলতে হবে যে, গোটা পৃথিবীর মানুষকে আতংকিত করার মত  এমন ভাইরাস পৃথিবীতে আগে আসেনি । তাই, করোনাভাইরাস সত্যিই এমন আতংকের কিনা, তা আজ প্রশ্ন নয়; এখন প্রশ্ন, করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্বব্যাপী যে আতংক এবং স্থবিরতার সৃষ্টি হয়েছে, তা থেকে পরিত্রাণের উপায় কি ?

নিঃসন্দেহে  বর্তমানে করোনাভাইরাস বিশ্বব্যাপী মানুষের কাছে একটি  আতংকের নাম । যে অশুভ শক্তি মানুষের আতংকের কারণ ঘটায় , আতংক  দূর না হওয়া পর্যন্ত সেই অশুভ শক্তির প্রভাব চলতে থাকে । তাই, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব থেকে দেশ তথা পৃথিবীকে রক্ষা করতে হোলে,  প্রথমত মানুষকে করোনা-আতংক মক্ত করতে হবে । আর এই আতংকমুক্ত করা গেলেই করোনাভাইরাস বিদায় নেবে । পুরোপুরি বিদায় না নিলেও অন্যান্য সাধারণ ভাইরাসের মত থাকবে;    মানুষের আতংকের কোন কারণ হবে না । তাই, এই মুহূর্তে প্রথম কাজ মানুষের মধ্য থেকে এই করোনা- আতংক দূর করা । কিন্তু, কিভাবে তা সম্ভব ?

পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে, ‘নিশ্চয়ই আল্লাহর কাছে সবচেয়ে নিকৃষ্টতম জীব হচ্ছে সেই মূক ও বধিররা,  যারা তাদেরকে প্রদত্ত বিচারবুদ্ধি ব্যবহার করে না’ (সূরা আনফাল, রুকু ৩, আয়াত ২২)। অন্যান্য ধর্ম এবং নীতিশাস্ত্র ঘাঁটলে একই তথ্য মিলবে । তাই, যে কোন ধরণের আতংক দূর করার প্রধান উপায় হবে, প্রত্যেকেই  নিজের সহজাত বিচারবুদ্ধি প্রয়োগ করা । যে অশুভ শক্তি ভয়ের কারণ তার চরিত্র ও প্রকৃতি নিজের বিচারবুদ্ধি দিয়ে বিশ্লেষণ করা । ইতোমধ্যে এটা প্রমাণিত যে, করোনাভাইরাস বায়ুবাহিত নয় এবং মাত্র ১৪ দিন এই ভাইরাসের কর্মক্ষমতা বজায় থাকে । কেবলমাত্র মানুষের সংস্পর্শ থেকেই এই রোগ ছড়ায় ।   আমাদের প্রবাসী ভাইবোনদের অনেকেই দেশে এসে পলাতক রয়েছেন । মূলত, করোনা- আতংক এর প্রধান কারণ । আবার তাঁরা পালিয়ে থাকায় সমাজের অন্য মানুষেরা আতংকিত আছেন । প্রবাসীগণ না পালিয়ে যদি ১৪ দিন নিজেরা আলাদা থাকতেন; তাঁদের অনেকেই সুস্থ প্রমাণিত হতেন । আবার করোনা আক্রান্ত মানে এই নয় যে,  তিনি মারা যাবেন । এই রোগে সুস্থ হওয়ার হার অনেক বেশী । তাই, শুধু প্রবাসী ভাইবোন নয়, আমাদের যে কারো কোন করোনা পূর্বলক্ষণ সন্দেহ হোলে, তা গোপন না করে, নিজেকে আলাদা রাখা এবং ডাক্তারদের পরামর্শ মেনে চলা দরকার । আমাদের সকলে সার্বিক সহায়তা দিলে, বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার গাইডলাইন যথাযথ অনুসরণ করলে-  এই রোগ প্রতিরোধ সম্ভব । ইতোমধ্যে পৃথিবীর বেশ কয়েকটা দেশ করোনাভাইরাসের অগ্রযাত্রা থামাতে পেরেছে । ফলে আতংকিত হওয়া নয়; মাথা ঠাণ্ডা রেখে সচেনতা দিয়েই এই মহাদুর্যোগ থেকে আমাদের ব্যক্তি, পরিবার, দেশ ও বিশ্বকে রক্ষা করা সম্ভব ।  

আমাদের  শ্রমজিবি ও মেহেনতি মানুষ যারা এখন কর্মচ্যুত, যারা ভাসমান বা  বস্তিবাসী – তাঁদের একটা বড় অংশ সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে সক্ষম নন । এ ধরণের  জনজীবনে করোনা ভাইরাসের বিস্তার ঘটলে অনেক বড় ক্ষতির কারণ হতে পারে । শুধু সরকারের একার পক্ষে সম্ভব নয়; আমাদের মধ্যে যারা  বিত্তবান ও সামর্থ্যবান আছেন, তাঁদের সকলকেই এই জনগুষ্টির সাহায্যে এগিয়ে আসতে হবে । আমাদের সর্বস্তরের মানুষের সার্বিক সহায়তায় এই  মহাদুর্যোগ কাটানো সম্ভব । 

উন্নত রাষ্ট্রের অনেক রাষ্ট্র প্রধান, সরকার প্রধান বা  নীতিনির্ধারকগণের অনেকেই করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন । অনেকেই ইতোমধ্যে  মৃত্যুবরণ করেছেন । পাশাপাশি অনেক সাধারণ মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন । তারমানে করোনাভাইরাস অনেকটা চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে যে, পৃথিবীতে মানুষ,  মানেই মানুষ । মানুষের মধ্যে কোন ভেদাভেদ নেই । কবি সত্যেন্দ্রনাথ দত্তের ভাষায়ঃ 

‘কালো আর ধলো  বাহিরে কেবল,

ভিতরে সবার সমান রাঙা’ ।

 অর্থাৎ, পৃথিবীর সব মানুষের রক্তের রঙ লাল । তাই, বর্তমান পৃথিবীর গোটা মানবজাতির সামনে একটাই অশুভশক্তি – তার নাম করোনাভাইরাস । এই শিক্ষা থেকে  সত্যিই যদি পৃথিবীর সব মানুষ এক সম্মিলিত মহাশক্তিতে পরিণত হয়; তাহলে আজকের এই অশুভ করোনাশক্তি স্বল্প সময়েই পরাজিত হতে পারে । পারস্পারিক শ্রদ্ধা ভালবাসার একটা সুন্দর পৃথিবী গড়ে উঠতে পারে । 

আমাদের দেশের ডাক্তারগণ যারা  তাঁদের দলবল নিয়ে শত প্রতিকূলতার মাঝেও জীবনবাজি রেখে কাজ করছেন; দেশের প্রশাসন, প্রতিরক্ষা এবং আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যগণসহ অন্যান্য   যারা সরকারি, বেসরকারি সেচ্ছাসেবী সংস্থার সদস্য হিসেবে একা বা সম্মিলিত ভাবে এই মহাদুর্যোগে দেশ ও দেশের জনগণের জন্য কাজ করছেন - তাঁদের সকলের প্রতি আমি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করছি । 

মহান সৃষ্টিকর্তা পৃথিবীর সকল মানুষকে করোনাভাইরাস থেকে রক্ষা করুন ।

 ঢাকা, ২৮ মার্চ, ২০২০ ।  


 


ADVERTISEMENT

Contact Us: 8 Offtake Street, Leppington, NSW- 2569, Australia. Phone: +61 2 96183432, E-mail: editor@banglakatha.com.au , news.banglakatha@gmail.com

ADVERTISEMENT