Main Menu

উইঘর মুসলিমদের ওপর নির্যাতন এবং চাইনিজ কমিউনিস্ট পার্টি নেতৃত্বের ওপর আমেরিকার নিষেধাজ্ঞা

মোঃ শফিকুল আলম: আমেরিকা এই প্রথম উইঘর এবং টার্কিক মুসলিমদের ওপর ভয়াবহ নির্যাতনের বিরুদ্ধে চায়নার চারজন কমিউস্ট নেতার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

তিনজন নেতাকে ইউএস ভিসা দেয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে এবং তাদের ইউএস বেইজড সম্পত্তি ফ্রিজ করা হয়েছে।

একজন হচ্ছেন জিনজিয়াং অন্চলের চাইনিজ কমিউনিস্ট পার্টি প্রধান এবং বেইজিং এ সংখ্যালঘুদের নিয়ন্ত্রনে পলিসি তৈরীকারকদের অন্যতম জনাব কুয়ানজু।
নিষেধাজ্ঞায় রয়েছেন পোলিটব্যুরো সদস্য জনাব চেন।

ইউএস সেক্রেটারী অব দি স্টেটস মাইক পম্পিও বলেন চায়নার পশ্চিমান্চলে সংখ্যালঘু মুসলমানদের কমিউনিস্ট রেজিম পদ্ধতিগতভাবে নির্যাতন চালিয়ে মুসলিম শ্রমিকদের তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে কারখানায় নির্ধারিত সময় ঘন্টার অধিক শ্রম দিতে বাধ্য করছে। শ্রম দিতে অস্বীকার করলে অবৈধ আটকাদেশ দিচ্ছেন। মুসলমানদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে জন্ম নিয়ন্ত্রনে বাধ্য করছে।

জনাব পম্পিও আরও বলেন চাইনিজ কমিউনিস্ট পার্টি উইঘর মুসলমানদের, কাজাখ জনগোস্ঠীর ওপর এবং জিনজিয়াং এর অন্যান্য সংখ্যালঘুদের নির্যাতন করে মানবাধিকারের চরম লংঘন করেছে। অতএব ইউএস অনর্থক তাদের পাশে দাঁড়াচ্ছেনা।

অন্য দু’জনের ওপর পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। তারা হচ্ছেন: জিনজিয়াং এর সিকিউরিটি ডিরেক্টর ওয়াং মিং শান এবং জিনজিয়াং অন্চলের সাবেক সিনিয়র কমিউনিস্ট পার্টি নেতা জনাব জু হাইলুন।

ইউএস ট্রেজারী ডিপার্টমেন্ট বলেছে উপরোক্ত ব্যক্তিদের অন্তত তিনজনের সাথে যেকোনো ধরনের আর্থিক লেনদেন ক্রিমিনাল ওফেন্স হিসেবে গন্য হবে। এমনকি সাবেক সিকিউরিটি অফিসিয়াল জনাব হুও লিউজুনও এই অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞার আওতায় থাকবে।

ট্রেজারী ডিপার্টমেন্ট ইনস্টিটিউশন হিসেবে সিকিউরিটি ব্যুরোর ওপরও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। কারন এই সিকিউরিটি ব্যুরো উইঘর এবং অন্যান্য অন্চলের সংখ্যালঘুদের ওপর ডিজিটাল সার্ভিলেন্স অব্যাহত রেখেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী এবং মানবাধিকার সংগঠনগুলোর মতে জিনজিয়াং এ দশ লক্ষাধিক মুসলমানদের ওপর চাইনিজ কমিউনিস্ট পার্টি ব্রেইন ওয়াশিং ক্যাম্পেইন করে মেজরিটি হ্যানদের সাথে বিলীন করার চেষ্টা করছে।

পম্পিও চায়নিজ কমিউনিস্ট পার্টির এসকল অমানবিক কার্যক্রমকে শতাব্দীর কলংক হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন এবং উল্লেখিত জায়গাসমূহতে পরিচালিত নির্যাতন এবং হত্যাকান্ডকে গনহত্যার সম পর্যায়ের অপরাধ হিসেবে গন্য করছেন। চায়না বলছে তারা ইসলামিক মৌলবাদ থেকে মুসলানদেরকে সরাতে ভোকেশনাল ট্রেইনিং দিচ্ছে; তাদেরকে ধর্মত্যাগে বাধ্য করা হচ্ছেনা।

উইঘর হিউম্যান রাইটস প্রোজেক্ট আমেরিকার আরোপিত নিষেধাজ্ঞাকে স্বাগত জানিয়ে অন্যান্য দেশের প্রতি একই পদক্ষেপ নেয়ার অনুরোধ জানিয়েছে। ওমর কানাত বলেন শেষ মুহূর্তে হলেও চায়না কৃতকর্মের ফল ভোগ করতে শুরু করেছে। তবে ইউএস-চায়না যখন অনেকগুলো বিষয় নিয়ে একটি বিরোধপূর্ণ সময় অতিবাহিত করছে সেই সময়ে উইঘর মুসলিমদের ওপর অমানবিক আচরনের বিরুদ্ধে ইউএস এর এ্যাকশন শুরু হলো।

পম্পিও অবশ্য সাম্প্রতিক তিব্বত এবং হংকং এর ঘটনার ওপর চাইনিজ অফিসিয়ালদের ভিসা রেসট্রিকশনের কথা বলছিলেন; কিন্তু তখন নির্দিষ্টভাবে কারও নাম উল্লেখ করা হয়নি।

অলিভিয়া ইনোস হেরিটেইজ ফাউন্ডেশনের পলিসি এনালিস্ট এবং মানবাধিকার গবেষক বলেন তাঁর সন্দেহ রয়েছে যে বেইজিং জিনজিয়াং এ তাদের করনীয় অকস্মাত পরিবর্তন করবে। তবে তিনি মনে করেন আমেরিকার বিধিনিষেধ আরোপ চায়নায় একটি বড় ধরনের প্রভাব ফেলবে। তার মতে আমেরিকা মি: চেনকে টার্গেট করেছে। কারন মি: চেন ইতোপূর্বে তিব্বতে ভীতির সন্চার করে এবং বল প্রয়োগে তিব্বতের প্রতিবাদকারীদের দমন করেছে। অলিভিয়ার মতে আমেরিকার এই ব্যবস্থা গ্রহন চাইনিজ কমিউনিস্ট পার্টিতে মৃদু কম্পন তৈরী করবে। কারন মি: চেনের মতো কোনো কঠিন পদক্ষেপ গ্রহনের পূর্বে তারা চিন্তা করবেন।

ভিসা ব্যান যেসমস্ত চাইনিজ অফিসিয়ালদের ওপর আরোপ করা হচ্ছে তাদের ইমিডিয়েট ফেমিলি মেম্বারগনও এ্যাফেক্টেড হবে। এমনকি সন্তানেরা লেখাপড়া বা প্লেজান্ট ট্রিপে আমেরিকা যেতে সক্ষম হবেনা। তাদের বিরুদ্ধে আমেরিকার বন্ধু রাষ্ট্রসমূহ একই ব্যবস্থা গ্রহন করতে পারে। তাদের ফেমিলি সমাজে হেয় প্রতিপন্ন হবে। পরবর্তীতে এই কাজ করতে কেউ আগ্রহী হবেনা বা দায়িত্ব নিবেনা।

ইউএস কংগ্রেস জিনজিয়াং এর ব্যাপারে কঠিনতর পদক্ষেপে সাড়া দিয়েছে এবং মে মাসে এই বিধিনিষেধ আরোপের সিদ্ধান্ত গ্রহন করেছে। তালিকাভূক্তদের মধ্যে মি: চেনের নাম রয়েছে। যদিও গত শুক্রবার মি: পম্পিও এবং ট্রেজারী সেক্রেটারী কংগ্রেসের সিদ্ধান্তের বাইরে পৃথক ক্ষমতাবলে নির্দিষ্ট কমিউনিস্ট নেতাদের ওপর ভিসা ব্যান আরোপ করেন এবং তাদের আমেরিকা বেইজড সম্পত্তি ফ্রিজ করেন।

ইউএস কংগ্রেসের ৭৮ জন সদস্য একটি পৃথক চিঠিতে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে অনুরোধ করেছেন যে চায়নায় সংখ্যালঘু পলিসিকে গনহত্যার নীতির সাথে তুল্য ঘোষনা করা হোক।


ADVERTISEMENT

Contact Us: 8 Offtake Street, Leppington, NSW- 2569, Australia. Phone: +61 2 96183432, E-mail: editor@banglakatha.com.au , news.banglakatha@gmail.com

ADVERTISEMENT