Main Menu

নেত্রকোনার দুর্গাপুরে করোনা ইস্যুতে নিবেদিত তিন নারী

নেত্রকোনার দুর্গাপুরে করোনাভাইরাস মোকাবেলায় দিনরাত মাঠে মানবকল্যাণে নিবেদিত হয়ে মানবিক মূল্যবোধে কাজ করে যাচ্ছেন উপজেলা চেয়ারম্যান ও দুই প্রশাসনিক নারী কর্মকর্তা। এ তিন নারী করোনার প্রভাব, সামাজিক দূরত্ব, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি রোধ, সচেতনতা বৃদ্ধি, ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জ ফেরতদের ঠেকাতে মাঠে দুর্বার গতিতে কাজ করছেন। তাঁদের সহায়তা করছেন ওসি মো. মিজানুর রহমান।

জান্নাতুল ফেরদৌস আরা ঝুমা তালুকদার উপজেলা পরিষদের প্রথম নারী চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি বলেন, গত বছরের এপ্রিল মাসের ১০ তারিখে দায়িত্ব গ্রহণ করি। বর্তমানে কার্যকাল ১ বছর ২ দিন পূর্ণ হলো। অল্প সময়ের মধ্যে হাতেগোনা ক’টি প্রকল্প হাতে নিতে পেরেছি। তিনি বলেন, ব্যক্তিগত তহবিল থেকে করোনাভাইরাস মোকাবেলায় গুরুদায়িত্ব পালনকারী ব্যক্তি,প্রতিষ্ঠানে কর্মরতদের মাঝে ব্যক্তিগত সুরক্ষা ইকুইপমেন্ট (পিপিই) বিতরণ করা হয়েছে। প্রতিনিয়ত মাঠপর্যায়ে খোঁজ নেয়া হচ্ছে। কর্মহীন মানুষের খাদ্য সংকটে তাঁদের পাশে থাকার চেষ্টা করছেন তিনি।

৩০ মে ২০১৯ তারিখে দুর্গাপুরের প্রথম নারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হিসেবে যোগদান করেন ফারজানা খানম। যোগদানের পর থেকেই এ উপজেলায় বিভিন্ন কর্মকাণ্ড ও আর্তমানবতার সেবায় দৃষ্টান্তের নজির স্থাপন করে এলাকায় ব্যাপক সুনাম লাভ করেছেন।

জানা গেছে, সিভিল সার্ভিস পরীক্ষার ৩০তম ব্যাচে উত্তীর্ণ হয়ে জেলার চুয়াডাঙ্গা ডিসি অফিসে (কালেক্টর) প্রথমে সহকারী কমিশনার হিসেবে যোগদান করে তিনি।

বর্তমানে এলাকা ঘুরে স্থানীয় চেয়ারম্যানদের সহায়তায় তিনি বিভিন্ন দুঃস্থ অসহায় সহায়-সম্বলহীন মানুষের খোঁজ খবর নেন। বর্তমান সময়ের ভয়াবহ ব্যাধি করোনাভাইরাস মোকাবেলায় নিয়েছেন নানা ধরনের পদক্ষেপ। বিভিন্ন গ্রামের দরিদ্র, অতিদরিদ্র, নিন্ম মধ্যবিত্ত পরিবারে সাহায্য সহযোগিতা করছেন। তার এ কর্মকাণ্ডে কষ্টের মাঝে সুখ পাচ্ছেন এখানকার বাসিন্দারা।

এ বছরের প্রথম দিন দুর্গাপুর সার্কেলের সহকারি পুলিশ সুপার হিসেবে মাহমুদা শারমিন নেলী যোগদান করেন। ৩৪তম বিসিএস পুলিশে ৭ম হয়েছিলেন তিনি। মেধাবী নারী এ পুলিশ কর্মকর্তা ২০১৮ সালে ময়মনসিংহ রেঞ্জ অফিসে প্রথম চাকরিতে যোগদান করেন। দুর্গাপুর-কলমাকান্দা’র সার্কেলে যোগদানের পর থেকেই নানামুখি অপরাধ প্রতিরোধমূলক অপারেশন সফলতার সাথে সম্পন্ন করেন এই পুলিশ কর্মকর্তা। অন্যায়ের সাথে হার না মানা এই পুলিশ অফিসার সচ্ছতা, দক্ষতা ও জবাবদিহিতার সাথে মাঠে কাজ করে যাচ্ছেন। সেই সফল কার্যক্রমের স্বীকৃতি হিসেবে রেঞ্জ শ্রেষ্ঠ সার্কেল এ এসপি’র পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন তিনি।

মেধাবী এ নারী পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, মাঠপর্যায়ে কাজের অভিজ্ঞতার ভিন্নতা আছে। তবে আমি আমার অবস্থান থেকে নিজেকে কখনো নারী মনে করিনা। একজন ব্যক্তি হিসেবে আমার দায়িত্বটাকে স্বচ্ছতা,জবাবদিহিতার মধ্য দিয়ে পালন করতে চাই। এতে সমাজের নানা শ্রেণির মানুষের স্বার্থ-সংশ্লিষ্টতার সম্পর্ক রয়েছে। আমি তাঁদের সবটুকু দিয়ে কর্ম সম্পাদন করে যাচ্ছি।

সম্প্রতি চোরাই পথে আসা ভারতীয় ১২৮টি গরু পৃথক অভিযানে আটক করেছি। তা সুষ্ঠু পদ্ধতিতে নিলাম প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে সরকারি কোষাগারে অর্থ জমা করা হয়েছে। আমি মনে করি নিজেকে যদি নারী মনে করতাম তাহলে হয়তো এমন চ্যালেঞ্জ নিতে পারতাম না। আমি কর্মে বিশ্বাসী, আর কর্মের মধ্য দিয়ে বেঁচে থাকতে চাই। আমি বিশ্বাস করি ওপরওয়ালার দয়াতে, বর্তমান বিশ্বের যে ভয়াবহ করোনাভাইরাসে মৃত্যুর মিছিলে পরিণত হচ্ছে। মাঠ পর্যায়ে সচেতনতার একটি মানবঢাল তৈরি করে এ থেকে উত্তরণ অনেকটাই সম্ভব হবে।


ADVERTISEMENT

Contact Us: 8 Offtake Street, Leppington, NSW- 2569, Australia. Phone: +61 2 96183432, E-mail: editor@banglakatha.com.au , news.banglakatha@gmail.com

ADVERTISEMENT