Main Menu

সাতক্ষীরায় শ্রেণিকক্ষে দোকান বসিয়ে শিক্ষকদের নেশা জাতীয় দ্রবের বেচাকেনার ব্যবস্হা

বর্তমান সরকার যেখানে মাদকমুক্ত রাষ্ট্র গঠন করতে আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছেন ঠিক তখনই সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার ছলিমপুরের হাজী নাছির উদ্দিন ডিগ্রি কলেজের একটি ক্লাস রুমের অভ্যন্তরে কলেজ চলাকালীন সময়ে প্রকাশ্যে সিগারেট জাতীয় মাদক বিক্রির অভিযোগ উঠেছে।


 

রীতিমত শ্রেণি কক্ষে দোকান বসিয়ে সিগারেট বেচাকেনায় প্রশ্ন দেখা দিয়েছে সেখানকার সার্বিক পরিবেশ নিয়েও।কলেজের অভ্যন্তরে নিয়ম বহির্ভূতভাবে নামমাত্র চায়ের দোকান প্রতিষ্ঠা করে ভেতরে ভেতরে সিগারেটসহ এজাতীয় মাদক বেচাকেনার মতো জঘন্য কাজে সহায়তা করার অভিযোগ উঠেছে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে- ছলিমপুরের হাজী নাছির উদ্দিন ডিগ্রি কলেজের মেইন গেটের বাম পাশের শ্রেণী কক্ষ গুলোর মধ্যে গেট সংলগ্ন প্রথম কক্ষে খোর্দ গ্রামের রবিউল ইসলামের স্ত্রী যমুনা বেগম (৫৫) কে একটি চা বিস্কুটের দোকান করে দেন কলেজ কর্তৃপক্ষ।

ছাত্ররা অভিযোগ করে বলেন- ওই দোকানে সিগারেটসহ এ জাতীয় নেশার সামগ্রি বিক্রি ও কয়েকজন শিক্ষকের তা সেবন করা আমাদের জন্য কী শিক্ষা দেয়?

বিষয়টি নিয়ে শনিবার অধ্যক্ষের সাথে কথা বলতে গেলে তার কক্ষে অবস্থানরত কলেজের ভেটেরিনারি শিক্ষক সাংবাদিকদের সাথে রূঢ় আচরণ করেন এবং নানা ধরনের অসম্মানজনক কথা বলতে থাকেন।

কিছুক্ষণ পরে অধ্যক্ষ কক্ষে প্রবেশ করলে তিনি কলেজ ক্যাম্পাসে মাদক বিক্রির বিষয়টি দৃঢ়কন্ঠে অস্বীকার করেন।
পরে কৌশলে সেই শ্রেণিকক্ষে সিগারেট বিক্রির প্রমাণ পাওয়া যায়।

অনুসন্ধানে আরোও দেখা গেছে- হাজী নাছির উদ্দিন ডিগ্রি কলেজের নানা ধরনের অনিয়ম ও দুর্নীতি এবং প্রকাশ্যে কলেজ চলাকালীন সময়ে কলেজেরই শ্রেণি কক্ষে সিগারেট বিক্রিসহ বেশ কিছু কারণে প্রায়ই প্রতিবাদী হয়ে ওঠে কলেজের ছাত্ররা। ফলে কলেজে সৃষ্টি হয় বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি। ব্যাহত হচ্ছে পাঠদান ব্যবস্থাও।

এ ব্যাপারে কলেজের ছাত্র রায়হান খান বলেন, কলেজ চলাকালীন সময়ে সিগারেট ও এ জাতীয় দ্রব্য বিক্রি হচ্ছে। এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রকাশ্যে ধূমপান চলে। আর অন্য সময়ে বসে নানান ধরনের নেশার আসর। আমরা মাদকমুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চাই।

রবিবার (২৫আগস্ট) এ ব্যাপারে হাজী নাছির উদ্দিন ডিগ্রি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আব্দুল আলিমের কাছে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এ ব্যাপারে আমি কিছুই জানি না। এজন্য কোন মন্তব্য করতে পারবো না।’

কলেজের পরিচালনা পরিষদের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রউফের কাছে জানতে চেয়ে মুঠোফোনে (০১৭৮১৬৪৮৭৬৪) যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

উল্লেখ্য, ছলিমপুরের হাজী নাছির উদ্দিন ডিগ্রি কলেজ ২০১২ সাল পরবর্তী সময় থেকে কলেজের নিজের গৌরব হারাতে শুরু করে। সেই থেকে বর্তমান পর্যন্ত কলেজের কতিপয় ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে অনিয়ম, স্বেচ্ছাচারিতা, ঘুষ লেনদেন, অবৈধভাবে শিক্ষক নিয়োগ, রিজার্ভ ফান্ডের টাকা উত্তোলন ও আত্মসাত, ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে অসাদাচারণ, বেতনের নামে অতিরিক্ত ফিস আদায়, কলেজের প্রতিষ্ঠাতা পরিবারকে অবমুল্যায়ন, অভিভাবকদের সাথে কোন বিষয়ে সমন্বয় না করা ইত্যদি।
এরূপ বহু ক্ষোভে ফুসে উঠে শনিবার (২৪আগস্ট) সকাল থেকে কলেজের সামনের রাস্তায় বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করে সংক্ষুব্ধ শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও এলাকাবাসী। 
তথ্য সূত্রঃ কলারোয়া নিউজ


ADVERTISEMENT

Contact Us: 8 Offtake Street, Leppington, NSW- 2569, Australia. Phone: +61 2 96183432, E-mail: editor@banglakatha.com.au , news.banglakatha@gmail.com

ADVERTISEMENT