Main Menu

রোহিঙ্গাদের ফিরে যাবার আকুতি শুনলেন বান কি মুন

কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গা শরনার্থী শিবির পরিদর্শন করেছেন জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব বান কি মুন। বুধবার বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে হেলিকপ্টার যোগে তিনি ক্যাম্প-২০’র মাঝে করা হেলিপ্যাডে অবতরণ করেন। আন্তর্জাতিক জলবায়ু সম্মেলন ‘গ্লোবাল কমিশন অন অ্যাডাপ্টেশন’-এ যোগ দিতে এসে তিনি উখিয়া-টেকনাফ পরিদর্শন করেন।

কক্সবাজারের শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মো. আবুল কালাম জানান, জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব উখিয়ার কুতুপালং ২০ নম্বর ও ১৭ নম্বর ক্যাম্প পরিদর্শন করেন। এসময় তিনি রোহিঙ্গা নর-নারীদের সঙ্গে কথা বলে তাদের অভিযোগ ও দাবি দাওয়াগুলো শুনেন।

২০ নম্বর ক্যাম্পের হেডমাঝি সিরাজুল মোস্তফা জানিয়েছেন, ক্যাম্প পরিদর্শনকালে বান কি মুন চলমান বৈরী আবহাওয়ায় রোহিঙ্গাদের থাকা, খাওয়া, চিকিৎসা, আবাসন বিষয়ে নানা প্রশ্ন করেন। এসময় রোহিঙ্গাদের নাগরিক অধিকার নিয়ে নিজ দেশে ফেরত পাঠাতে সহযোগিতার দাবি জানানো হয়। ২০১৭ সালে ঘটে যাওয়া বর্বরতা আর না হলে রোহিঙ্গারা ফিরে যেতে প্রস্তুত বলে জানানো হয় বান কি মুনকে। জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব রোহিঙ্গাদের দাবির প্রতি সহমত পোষণ করে সহযোগিতা অব্যাহত রাখার আশ্বাস দেন।

বান কি মুনের সঙ্গে ছিলেন মার্শাল আইল্যান্ডসের রাষ্ট্রপতি হিলদা হিনে এবং বিশ্বব্যাংকের প্রধান নির্বাহী ক্রিস্টালিনা জর্জিয়েভা, নরওয়ের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ব্রোগ ব্রেন্ডে ও বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন, বিশ্বব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট হার্টউইগ স্কেফার, ত্রাণ সচিব শাহ কামাল, পররাষ্ট্র সচিব মো. শহিদুল হকসহ আরো অনেকে।

এর আগে সকালে হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে গ্লোবাল কমিশন অন অ্যাডাপটেশনের (জিসিএ) ঢাকা বৈঠকে জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব বান কি মুন বলেছেন, বাংলাদেশ জলবায়ু সঙ্কট মোকাবিলায় বিশ্বের কাছে শিক্ষকে পরিণত হয়েছে। অভিযোজন বিষয়ে বাংলাদেশের কাছে বিশ্বের অনেক কিছু শেখার আছে বলে মন্তব্য করেন তিনি। তিনি বলেন, আমরা এখানে এসেছি জলবায়ু সঙ্কট মোকাবেলায় বাংলাদেশের অভিজ্ঞতা শুনতে ও জানতে। এ ক্ষেত্রে যারা জলবায়ু পরিবর্তনের প্রাথমিক শিকার তারা আমাদের সেরা শিক্ষক এবং তারা খোলা মনে আমাদের শেখাবেন।


ADVERTISEMENT

Contact Us: 8 Offtake Street, Leppington, NSW- 2569, Australia. Phone: +61 2 96183432, E-mail: editor@banglakatha.com.au , news.banglakatha@gmail.com

ADVERTISEMENT