Main Menu

কোহলিকে হারানোর আনন্দ যেভাবে উদযাপন করলেন রাসেল

চিন্নাস্বামীতে ‘মাসলম্যান রাসেল শো’! যার জেরে অপ্রত্যাশিত জয় পেল কেকেআর৷ শুক্রবার আইপিএল ম্যাচে বিরাট কোহলির রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের বিরুদ্ধে ২০৬ রান তাড়া করে জয়ের কারিগর আন্দ্রে রাসেল৷ ১৩ বলে তার ৪৮ রানের অপরাজিত ইনিংসে শুক্রবার চিন্নাস্বামীতে ‘বিরাট জয়’ ছিনিয়ে নেয় কলকাতা নাইটরাইডার্স৷ দলকে অপ্রত্যাশিত জয় এনে দিয়ে ড্রেসিংরুমে কেক কেটে স্ত্রীকে খাওয়ালেন ‘কিং ক্যারিবিয়ান’৷

ব্যর্থ বিরাট ও এবি ডি’ভিলিয়ার্স জুটির ১০৮ রানের পার্টনারশিপ৷ শুক্রবার চিন্নাস্বামীর বাইশ গজে প্রথম ব্যাটিং করে ২০৫ রান তোলার পর অন্য যেকোনো ক্যাপ্টেনের মতো জয়ের স্বপ্ন দেখেছিলেন রয়্যাল অধিনায়ক৷ কিন্তু বিরাটের সেই স্বপ্ন পূরণ হয়নি৷ তার কারণ চিন্নাস্বামীতে ‘মাসলম্যান রাসেল শো’৷

শেষ চারে জয়ের জন্য নাইটদের দরকার ছিল ৬৬ রান৷ টি-২০ যুগেও যা ছিল অপ্রত্যাশিত৷ কিন্তু অসম্ভবকে সম্ভব করে দেখালেন রাসেল৷ শেষ দু’বারে নাইটদের জয়ের জন্য দরকার ছিল ১২ বলে ৩০ রান৷ ১৯তম ওভারে টিম সাউদিকে ২৯ রান নিয়ে বিরাটের স্বপ্নভঙ্গ করে দেন রাসলে৷ পাঁচ বল বাকি থাকতেই পাঁচ উইকেটে ম্যাচ জিতে যায় কেকেআর৷ সাউদির ওভারে চার ছক্কা ও একটি বাউন্ডারি মারেন রাসেল৷ প্রথম চার বলে মাত্র এক রান করা রাসেল বাকি ৯ বলে করেন ৪৭ রান৷

চিন্নাস্বামীতে বিরাটের আলো কেড়ে নিয়ে ম্যাচের সেরা নাইটদের ক্যারিবিয়ান ‘মাসেলম্যান’৷ ম্যাচ জিতিয়ে রাসেল বলেন, ‘আমি সবসময় আত্মবিশ্বাসী৷ আমি মাঠে নামার পর ডিকে বলেছিল, আমাদের কয়েকটা বল দেখতে হবে৷ সেই সময় আমি শুরুতে কয়েকটা বল দেখে নিই৷ কিন্তু যখন আমাদের দরকার ছিল ২৮ বলে ৬৮ রান তখন আমি অল-আউট যায়৷ এমনটা প্রতিদিন হয় না৷

এটাই টি-২০ ক্রিকেট৷ এক ওভারের ম্যাচের গতি বদলে দেয়৷ এই কারণ আমি কখনো আশা ছাড়িনি৷ জামতাম সব কিছুই সম্ভব৷ লো ফুলটস বল হিট করা সহজ নয়৷ আমি এর ব্যাখ্যা দিতে পারব না৷ শুধু ক্রিজে গিয়ে করে দেখাতে পারব৷’


আইপিএলে শুক্রবার বিরাটের রেকর্ডের দিনে আলো কেড়ে নিলেন রাসেল। পঞ্চম ম্যাচেও হারের মুখ দেখতে হলো আরসিবিকে। রাসেল আবারো প্রমাণ করলেন কেন তাকে বিশ্বের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর ব্যাটসম্যান বলা হয়। চিন্নাস্বামীতে কোহলিদের হাতের মুঠো থেকে জয় ছিনিয়ে আনলেন তিনি।কলকাতা জিতল ৫ উইকেটে। জয়ের ফলে দ্বিতীয় স্থানে উঠে এলো কেকেআর।

চিন্নাস্বামীতে লড়াইটা ছিল কেকেআরের আন্দ্রে রাসেল-সুনীল নারিনের অলরাউন্ড পারফরম্যান্স বনাম আরসিবির বিরাট কোহলি-এবি ডি’ভিলিয়ার্সের ব্যাটসম্যানশিপের। এবং সেই লড়াইয়ে লেটার মার্কস নিয়ে পাশ করে গেলেন রাসেল। পরপর চার ম্যাচে হারের পর এদিনের ম্যাচ কোহলিদের জন্য ছিল আইপিএলে টিকে থাকার লড়াই। সেই মতো লড়াই দিলেও জিততে পারলেন না বিরাটরা।

এদিন টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয় কেকেআর। দীনেশ কার্তিকের এই সিদ্ধান্ত বুমেরাং হয়ে যায় কলকাতার জন্য। আরসিবির তরফে পার্থীবের সঙ্গে এদিন ওপেন করতে আসেন খোদ অধিনায়ক বিরাট। একের পর এক দৃষ্টিনন্দন শট, যা বিরাটের কাছ থেকে ভারতীয় সমর্থকরা দেখতে অভ্যস্ত, তেমনটাই উপহার দিলেন আরসিবি অধিনায়ক। অর্ধশতরান করার পাশাপাশি, নতুন রেকর্ডও করে ফেললেন বিরাট। কী সেই রেকর্ড?

আরসিবি অধিনায়ক সুরেশ রায়নাকে টপকে হয়ে গেলেন আইপিলের সর্বোচ্চ রান স্কোরার। বর্তমানে আইপিএলে তিনি ৫ হাজার ১১০ রানের মালিক। অন্যদিকে, বিরাটের পাশাপাশি এবি ডি ভিলিয়ার্সও দুর্দান্ত ফর্ম দেখালেন। মাত্র ৩২ বলে তিনি করলেন ৬৩ রান। দুই তারকার দুর্দান্ত ইনিংসে ভর করে আরসিবি তোলে ৩ উইকেটে ২০৫ রান।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালোই করে কেকেআর। সুনীল নারিন দ্বিতীয় ওভারে প্যাভিলিয়নে ফিরলেও লিন, উত্থাপারা দশ রানের আশেপাশেই তোলেন প্রতি ওভারে । লিনের উইকেটের পতনের পর কিছুটা চাপে পড়ে যায় কেকেআর। কিন্তু যাদের কাছে আন্দ্রে রাসেলের মতো তারকা আছেন তাদের আর চিন্তা কী!

আবারো কেকেআরকে হারের মুখ থেকে জিতিয়ে আনলেন বিগ রাস। তার ১৩ বলে ৪৮ রানের ইনিংস মরশুমের প্রথম জয়ের স্বপ্ন ভেঙে দিল আরসিবির। ৫ বল বাকি থাকতেই নির্ধারিত ২০৬ রানের লক্ষ্যে পৌঁছে গেল নাইটরা।


ADVERTISEMENT

Contact Us: 8 Offtake Street, Leppington, NSW- 2569, Australia. Phone: +61 2 96183432, E-mail: editor@banglakatha.com.au , news.banglakatha@gmail.com

ADVERTISEMENT