Main Menu

কার্ডিনাল জর্জ পেল দোষী সাব্যস্ত, কারাদন্ড দেয়া হবে ৩ মার্চ

মোঃ শফিকুল আলম: কার্ডিনাল জর্জ পেলের দন্ড প্রদানপূর্ব শুনানি ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৯ শেষ হলো। আজ ২৭ ফেব্রুয়ারী দন্ড প্রদানের পূর্বে জামিন বাতিল করে জেলে পাঠানো হলো। ৩ মার্চ ২০১৯ তাকে দন্ড প্রদান করা হবে।

 

 

 

কার্ডিনাল জর্জ পেল, ভ্যাটিকানের ক্যাথলিক ধর্ম যাদকদের সর্বোচ্চ পদমর্যাদায় অধিষ্টিত হয়েছিলেন যাঁরা পোপ নির্বাচন করে থাকেন। তিনি ১৯৪১ সালের ৮ জুন অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নে জন্ম গ্রহন করেন। তিনি একজন লেখক, কলামিস্ট এবং স্পের্টসম্যান ছিলেন। তিনি ১৯৮৭-১৯৯৬ পর্যন্ত মেলবোর্নে সহকারী আর্চ বিশপ ছিলেন, ১৯৯৬-২০৯১ মেলবোর্নে আর্চ বিশপ, ২০০১-২০১৪ সিডনিতে আর্চ বিশপ এবং এই সময়ের মধ্যে ২০০৩ এ তিনি কার্ডিনাল নিযুক্ত হন। তিনি ২০১৪-তে ভ্যাটিকান সচিবালয়ের গুরুত্বপূর্ণ পদ অর্থনৈতিক মন্ত্রনালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত হন। তিনিই ভ্যাটিকানের সর্বোচ্চ পদধারী যিনি ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৯ শিশু যৌন নীপিড়ক হিসেবে অভিযুক্ত হলেন। ধারনা করা হচ্ছে তাঁর কমপক্ষে দশ বছরের কারাদন্ড হবে। আগামী ৩ মার্চ তাকে দন্ড প্রদান করা হবে।

 

গত রবিবার যখন পোপ ফ্রান্চিজ ভ্যাটিকানে ‘শিশু যৌন নির্যাতন’ সম্মেলনে কথা বলছিলেন তখন তিনি যাজক জর্জ পেলের শিশু যৌন নির্যাতনের কথা উল্লেখ করে বল্লেন এগুলো হচ্ছে শয়তানের কর্মকান্ড। পোপের এই বিশ্লেষন সম্পূর্ণ ধর্মত্বাত্বিক। কিন্তু দীর্ঘকাল ধরে চলে আসা চার্চের যাজকদের শিশুদের ওপর চালানো যৌন নির্যাতন বন্ধে চার্চ কর্তৃপক্ষ, এবং তাদের প্রধান নিয়ন্ত্রক সংস্থা ভ্যাটিকান অথরিটি এর দায় কিভাবে এড়াবেন? কারন এই সমস্ত শিশুদের দেখভাল করা এবং নিরাপত্তা নিশ্চিত করা তাদের দায়িত্ব ছিলো।

 

আসন্ন দিনগুলিতে এই প্রশ্ন ঘুরে ঘুরে আসবে। এবং সকল ক্যাথলিক ধর্মাবলম্বিদের তাদের ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের ওপর বিশ্বাসে চির ধরবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই। দন্ড প্রদানপূর্ব শুনানিতে গতকাল ২৬ ফেব্রুয়ারী জর্জ পেলকে সকল জুরিগন একটি sexual penetration এবং চারটি অসৌজন্যমূলক যৌন আচরনের অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমানিত হয়েছে বলে ঐকমত্য হয়েছেন। জর্জ পেল যখন মেলবোর্নে আর্চ বিশপ ছিলেন তখন ১৯৯৬ এবং ১৯৯৭ সালে দু’জন ১৩ বছর বয়সী বালক যারা চার্চ সংগীত স্কুলের ছাত্র ছিলো তাদের ওপর রোববারের ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতা (যা’ ক্যাথলিকদের জন্য বাধ্যতামূলক) শেষে তিনি চার্চের ভিতর যেখানে আর্চ বিশপ প্রার্থনা পরিচালনা করেন সেখানে এই দু’টি শিশুর ওপর যৌন নির্যাতন চালান। শিশু দু’টি তাদের স্কলারশীপ বাতিল হওয়ার ভয়ে চার্চ প্রধানের অনৈতিক আচরনের বিষয়টি তখন গোপন রেখেছিলো।

 

পেল এর জঘন্য অপরাধ ভুক্তভোগীদের জন্য আরো বিষাদময় ছিলো এই কারনে যে জর্জ পেলই তখন চার্চে যৌন নির্যাতন বন্ধের ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত ছিলেন। তখন তিনি তার নিজের অপরাধ গোপন করে বরং তখনকার অন্যান্য সকল ভিক্টিমদেরকে সামান্য আর্থিক ক্ষতিপূরন দিয়ে ঘটনার কবর রচনা করেছিলেন। অর্থাৎ তিনি অন্য অপরাধীদেরও রক্ষা করেছিলেন।

 

যদিও জর্জ পেল এর অপরাধ প্রমানিত হওয়ার পরও কিছু কিছু ক্যাথলিক ভাবছেন পেল এর বিচারকার্যতো এখনও শেষ হয়নি। নিশ্চয়ই তিনি উচ্চতর আদালতে অ্যাপীল করবেন। সেখানে যেহেতু নিজেকে নির্দোষ প্রমানিত করার সুযোগ এখনও রয়েছে। এই অন্ধ বিশ্বাসীরা জর্জ পেল এর বিরুদ্ধে এতো বছর পরে অভিযোগ তদন্ত করা অনেকটা ডাইনি খোঁজার শামিল হয়েছে বলে মনে করেন। তাদের ধারনা উচ্চতর আদালতে আনীত অভিযোগ প্রমানিত হবেনা।

 

এই কেসের সকল বিষয় রায়ের পর সূক্ষভাবে বিশ্লেষন করায় কোনো দোষ নেই। ২২ বছর পর এধরনের অপরাধ প্রমান করা কঠিন। তবে বিশ্লেষকগন বলছেন জর্জ পেলের সঠিক বিচার হয়েছে। জুরিগন তার অপরাধ সন্দেহাতীতভাবে প্রমানিত হয়েছে বলে এক মত প্রকাশ করেছেন। অনেকের মতে পেল যখন দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি হিসেবে যৌন নীপিড়ন অভিযোগের তদন্ত করে বিচার করেছিলেন আদালত তার থেকে ১০০% বেশি নিরপেক্ষ থেকে ন্যায় বিচার করেছেন।

 

ক্যাথলিক নেতৃবৃন্দের বিতর্কে না জড়িয়ে তারা কেনো এ ধরনের অপরাধ বন্ধ করতে ব্যর্থ হলেন তা’ বিশ্লেষন করা জরুরী বলে বিশ্লেষকগন মনে করেন। তাদের মতে বিচারকার্য যাতে prejudiced না হয় তার জন্য বিচারকার্য শেষ না হওয়া পর্যন্ত পেল এর বিচারকার্য সাংবাদিকদের প্রচারে আদালত এক ধরনের নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিলেন। বিচারকার্য অনেকটা ক্লোজ ডোরে হয়েছে।বিচারকার্য শেষ হওয়ার পরে তা’ প্রকাশের অনুমতি দেয়া হলো গতকাল। বহুকাল পর্যন্ত চার্চ একধরনের বিশেষ সুবিধা ভোগ করতো। তারা নিজেরাই এই ধরনের অপরাধ তদন্তে পুলিশি ভূমিকা পালন করতেন। এতে করে চার্চ ভিক্টিমের কনফেশন এবং দাবী লুকোতে সক্ষম ছিলেন। বর্তমানে নিউ সাউথ ওয়েলস্ এবং ভিক্টোরিয়াসহ কিছু স্টেটে আইনের এই ছিদ্রগুলো বন্ধ করা হয়েছে।

 

পোপ ফ্রান্চিজ অবশ্য গত রোববারের ভাষনে প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছেন যে কঠিন অভ্যন্তরীণ নিয়ম-কানুন এবং প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা রেখে বাস্তবধর্মী এবং দক্ষ ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠিত করা হবে। তাঁর ভাষনের সত্যতা মেনে নিয়ে চার্চসমূহ হয়তো বুঝতে সক্ষম হবে কি সমস্যার মধ্য দিয়ে তারা অতিবাহিত করছেন। যদিও দীর্ঘ সময় যৌন নির্যাতনের শিকার শিশুরা এবং তাদের পরিবার একটি ধাঁধার মধ্যে ছিলেন। কি করা উচিত সেটা পর্যন্ত ভাবতে পারতেননা।

 

অনেকে বলছেন চার্চ কর্তৃপক্ষের বরং একধাপ এগিয়ে জর্জ পেল এর সমস্ত ধর্ম যাজকের উপাধি প্রত্যাহার করে নেয়া উচিত। জর্জ পেল ইঙ্গিত করেছেন যে তিনি অ্যাপীল করবেন। চার্চ কর্তৃপক্ষ তাকে বেনিফিট অব ডাউট দিতে চাচ্ছেন। কিন্তু সেটা করতে গিয়ে বরং চার্চ কর্তৃপক্ষ নিজেদের অপরাধকে কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড এর বাইরে রাখতে চাইছেন।

 

জর্জ পেল এর ঘৃন্য অপরাধ শুধুমাত্র ভিক্টিমদের বা তাদের পরিবারের সদস্যদেরকেই ক্ষুব্ধ করেনি পুরো কমিউনিটিকে আহত করেছে। গতকাল কোর্ট থেকে যখন পুলিশ তাকে একটি অপেক্ষমান পুলিশ ভ্যানে তুলছিলেন তখন উপস্থিত অনেকেই চিৎকার করে বলছিলেন, “কার্ডিনাল তুমি একটি পশু। তুমি নরকের আগুনে পুড়বে।”

 

পেল এর জীবিত ভিক্টিম এক বিবৃতিতে তাকে সর্বত: সহযোগিতা এবং সাহস যোগানোর জন্য তার পরিবারের সদস্যদেরকে ধন্যবাদ জানায়। পোপ ফ্রান্চিজ অবশ্য আদালত কর্তৃক দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পর পরই পেলকে কার্ডিনাল এবং অর্থনৈতিক মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি প্রদান করেন। অস্ট্রেলিয়ান আর্চ বিশপ কনফারেন্স জর্জ পেল এর দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় অসংখ্য অস্ট্রেলিয়ান এবং সমগ্র বিশ্বে খ্রীষ্টান ধর্মাবলম্বীরা ব্যথিত হয়েছেন বলে মনে করেন। অবশ্য আর্চ বিশপ কনফারেন্স অস্ট্রেলিয়ান লিগাল সিস্টেমের প্রতি আস্থাশীল।

 

জর্জ পেলের আইনজীবি মি: রিচার বলেন একমাত্র পাগল ছাড়া চার্চে আর্চ বিশপের প্রার্থনা পরিচালনার জায়গায় কেউ শিশুদেরকে যৌন নীপিড়ন করতে পারেনা এবং এটা অবিশ্বাস্য। তিনি পেল এর বিরুদ্ধে প্রদানকৃত রায়ের বিরুদ্ধে চ্যাল্ন্জ করবেন। ৩ মার্চ দন্ড প্রদান এবং অ্যাপীল না করা পর্যন্ত আর জামিন পাবার সম্ভাবনা নেই। তাই জনাব পেল ৩ মার্চ পর্যন্ত নিশ্চিত জেলে থাকবেন। তাকে ভিক্টেরিয়ার একটি জেলে যেখানে কুখ্যাত যৌননিপীড়কদের ( Paedophile) কারারুদ্ধ করে রাখা হয়েছে সেখানেই রাখা হবে।


ADVERTISEMENT

Contact Us: 8 Offtake Street, Leppington, NSW- 2569, Australia. Phone: +61 2 96183432, E-mail: editor@banglakatha.com.au , news.banglakatha@gmail.com

ADVERTISEMENT