Main Menu

ভোটের পর লাফিয়ে বাড়ছে শেয়ারবাজারের সূচক

আওয়ামী লীগ সরকার আবার ক্ষমতায় আসছে নাকি বিএনপি আসছে, তা নিয়ে ছিল শঙ্কা। কিন্তু ৩০ তারিখের পর সেই শঙ্কা দূর হয়েছে শেয়ারবাজার থেকে। ফলে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আবারও আস্থা ফিরেছে। আর তার সুবাদেই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে বাজারের সূচক।

বাজার বিশ্লেষকরা বলছেন, নির্বাচনের আগে বাজারে মন্দা ছিল। এখন সেখানে ব্যাপক চাঙাভাব দেখা যাচ্ছে। এর পেছনে প্রধান কারণ বাজারে শঙ্কা দূর হওয়া এবং বিনিয়োগকারীদের ইতিবাচক আস্থা তৈরি হওয়া। মূলত ভোটের পরই শেয়ারবাজারের সূচক টানা বাড়ছে।

মঙ্গলবার দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স গতকাল মঙ্গলবার এক দিনেই ১১৬ পয়েন্ট বা ২ শতাংশের বেশি বেড়েছে।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচকটি বেড়েছে ৩৯৯ পয়েন্ট বা ২ দশমিক ৩৩ শতাংশ।

সূচকের পাশাপাশি লেনদেনেও ভালো গতি রয়েছে। ঢাকার বাজারে গতকালও দিন শেষে লেনদেন হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। আর চট্টগ্রামের বাজারে আগের দিনের চেয়ে লেনদেন বেড়েছে প্রায় দ্বিগুণের বেশি।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, ৯ মাস ৭ দিনের ব্যবধানে গতকালই এক দিনে ডিএসইএক্স সূচকের সর্বোচ্চ উত্থান ঘটেছে। এর আগে সর্বশেষ ২০১৮ সালের ১ এপ্রিল এক দিনে ডিএসইএক্স সূচকটি বেড়েছিল প্রায় ১৫০ পয়েন্ট। গতকালসহ ভোটের পর দেশের শেয়ারবাজারে সূচকের বড় ধরনের উত্থানের পেছনে বড় ভূমিকা রেখে চলেছে ব্যাংক, বিমা, ওষুধ, টেলিকমসহ মৌলভিত্তির কোম্পানিগুলো।

এদিকে আজ বুধবারও দেশের পুঁজিবাজারে লেনদেন ও সূচকের চাঙাভাব বজায় থাকতে দেখা গেছে। দুপুর ১২টা ৫০ মিনিট পর্যন্ত ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে প্রায় ৬০০ কোটি টাকার। এসময় পর্যন্ত বাজারে বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ারের দর বৃদ্ধি পেতে দেখা যায়। আর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স অবস্থান করছে গতদিনের চেয়ে ১৭ পয়েন্ট বেশিতে।

ভোটের পর শেয়ারবাজার চাঙা হবে—এটা সবার কাছেই প্রত্যাশিত ছিল। কিন্তু সূচক যেভাবে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে, সেটিকে অনেকে স্বাভাবিক বলে মনে করছেন না।

পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) সাবেক চেয়ারম্যান ফারুক আহমেদ সিদ্দিকী বলেন, নির্বাচনের আগে বেশ কিছুদিন ধরে বাজারে মন্দাভাব ছিল। তাতে অনেক শেয়ারের দাম অবমূল্যায়িত অবস্থায় ছিল। এমন পরিস্থিতিতে ভোটের পর বাজারে শেয়ারের দাম বাড়বে এবং তাতে সূচকও বৃদ্ধি পাবে—এ প্রত্যাশা ছিল। কিন্তু নির্বাচন–পরবর্তী সময়ে যেভাবে সূচকের উত্থান ঘটছে, সেটি অপ্রত্যাশিত। কারণ, ভোটের পর সূচক বৃদ্ধির প্রত্যাশাটা মনস্তাত্ত্বিক। এর সঙ্গে মৌলভিত্তির কোনও সম্পর্ক নেই।

ডিএসইর সাবেক পরিচালক শাকিল রিজভী বলেন, নির্বাচন ঘিরে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে এক ধরনের শঙ্কা ছিল। বড় ধরনের কোনও সহিংসতা ছাড়া নির্বাচন সম্পন্ন হওয়ায় বিনিয়োগকারীরা আস্থা ফিরে পেয়েছে।


ADVERTISEMENT

Contact Us: 8 Offtake Street, Leppington, NSW- 2569, Australia. Phone: +61 2 96183432, E-mail: editor@banglakatha.com.au , news.banglakatha@gmail.com

ADVERTISEMENT