Main Menu

দেশে ফিরেছেন রেমিট্যান্স যোদ্ধা কবির

হুইল চেয়ারে বসে মারাত্মক ব্যধিতে আক্রান্ত ইতালি প্রবাসি কবির আহমেদ দেশে ফিরছেন রবিবার ২ ডিসেম্বর। স্থানীয় সময় সকালে কাতার বিমানে দেশের উদ্দেশ্যে ইতালি থেকে রওনা দেন তিনি।

ব্যক্তিগত উদ্যোগে দেশে যাওয়ার সমস্ত ব্যবস্থা করেন আনকোনা বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন সভাপতি মো. দুলাল ও সার্বিকভাবে সহযোগিতাকারী মারুফ হাসান।

তারা পুরো ইতালিতে মানবিক সাহায্যের আবেদন জানান। এ ব্যাপারে মারুফ বলেন,মানবিক কারণে কবির আহমেদের জন্য ইতালি প্রবাসীরা অর্থনৈতিক সহযোগিতায় এগিয়ে এসেছেন।

তিনি বলেন,কবিরের জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সাহায্যের আবেদন করা হয়। এতে ইতালি প্রবাসিরা বেশ ভাল সাড়াদেন। ফলে অল্প সময়ে তাকে দেশে পাঠানো সম্ভব হয়েছে।

কবির আহমেদকে দেশে প্রেরণ করতে পেরে তিনি ব্যক্তিগতভাবে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন দেড় লক্ষ প্রবাসীর মুখপাত্র আমরা ইতালি প্রবাসী পেজকে। পাশাপাশি মিডিয়া হিসেবে দেশের শীর্ষ স্থানীয় দৈনিক যুগান্তর পত্রিকাকে।

তিনি আরও বলেন, কবিরের অসহায়ত্বের সংবাদটি তারা প্রচার করায় সবাই সহযোগিতার জন্য এগিয়ে আসেন। তাই রবিবার ২ ডিসেম্বর কাতারের একটি বিমানে তিনি মাতৃভূমি বাংলাদেশে যান।

রেমিট্যান্স যোদ্ধা কবির ভাগ্য উন্নয়নের আশায় ইতালি এসে তার জীবনই থমকে গেছে। জানা নেই মৃত্যুর এ ভয়ানক ছোবল থেকে আদৌ মুক্তি মিলবে কিনা এ রেমিটেন্স যোদ্ধার।

ভাগ্যের চাকা থামিয়ে দিল তার মরণব্যাধি ক্যান্সার। এক বছর আগে ভাগ্য পরিবর্তনের আশায় লিবিয়া থেকে ইতালি পাড়ি জমান তিনি। ইতালি আসার পরপরই শরীরে ক্যান্সার ধরা পড়ে।

যে সময় অর্থ উপার্জন করবে সে সময় মরনব্যাধিতে আক্রান্ত হয়ে বিছানার সঙ্গী হয়ে যান তিনি।
পৃথিবীর আলো যেন ফুরিয়ে আসছে তার জীবনে। তাই অর্থ আর উপার্জন করা হলোনা তার।

সেজন্য ইতালি প্রবাসীসহ দেশের বিত্তবানদের সহযোগিতা চেয়েছেন তিনি।

এ ব্যাপারে তিনি বলেন, পারিবারিক অবস্থা তেমন একটা ভালোনা। তাই সবার কাছে মানবিক সাহায্যের আবেদন করেছেন কবির। এ মুহুর্তে তিনি খুব অসহায়। তার এ অন্তিম সময়ে একজন রেমিট্যান্স যোদ্ধা হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি কামনা করছেন।

কবির আরও বলেন, তিনটি বছর লিবিয়াতে কাটিয়েছি। তেমন অর্থ কামাতে পারিনি। ভাগ্যের চাকা ঘুরাতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ইতালি পাড়ি জমাই। কিন্তু ভাগ্য আমার সহায়ক হলোনা। আসার পরই অসুস্থ হয়ে পড়ি। তাই ইতালি এসেও টাকা রোজগার করতে পারিনি। এখন দেশে যাচ্ছি। দেশে গিয়েই-বা কি করে চলবো। যার কারনে সবার কাছে সাহায্যের হাত বাড়ালাম।

কবির আহমেদের দেশে স্ত্রী ও তিন সন্তান রয়েছে। তার গ্রামের বাড়ি নোয়াখালী জেলার পাছতুপা,সেনবাগ থানার চাতার পাইয়া ইউনিয়নে। বাবার নাম সিদ্দিকুর রহমান। তিনি তার বাকীটা সময় পরিবারের সঙ্গে কাটাতে চান। তিনি বলেন,তার তিনটি সন্তান সবাই নাবালক। দুই মেয়ে এক ছেলে।
কবির আহমেদকে দেশ-বিদেশে যারা সাহায্য-করতে চান তারা নিচের অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে সহযোগিতা করতে পারেন-Jannatul Fardaus. SB 34105647. Janata bank Ltd. Chatar Paiya branch Sen bag Noakhali Bangladesh. অথবা মো. দুলাল সভাপতি বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন আনকোনা মার্কে 3298787585,হাসান মারুফ 3318897126


ADVERTISEMENT

Contact Us: 8 Offtake Street, Leppington, NSW- 2569, Australia. Phone: +61 2 96183432, E-mail: editor@banglakatha.com.au , news.banglakatha@gmail.com

ADVERTISEMENT