Main Menu

ধ্বংস না সৃষ্টি সৃষ্টি সৃষ্টি

মহিবুল ইজদানী খান ডাবলু: স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরা ঢাকা সহ বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় তাদের নেয্য দাবি নিয়ে রাজপথে আন্দোলনে নেমেছেl একটি প্রতিষ্ঠানের দুইজন শিক্ষার্থী ও পরবর্তীতে আরো কয়েকজন শিক্ষার্থীর মির্তুর সংবাদ মিডিয়ায় প্রকাশিত হয়েছেl বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের কার্যকরী সভাপতি ও একইসাথে সরকারের মন্ত্রী শাজাহান খান এধরণের মির্তুকে উড়িয়ে দিয়ে হাস্যউজ্জলভাবে ভারতের সড়ক দুর্ঘটনার সাথে তুলনা করেছেনl সারা দেশের মানুষ মন্ত্রীর এধরণের উত্তর ও হেসে হেসে কথা বলার দৃশ্য দেখে অবাক হয়েছেl একজন মন্ত্রী কি করে এমন হতে পারেl সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেছেন তিনি নাকি এভাবেই হেসে হেসে কথা বলেনl এটা তার অভ্যাসl হলেও হতে পারেl কিন্তু জনগণের এখনো মনে আছে তিনি কিভাবে একটি টিবি চেনেলের টকশোতে রাগান্বিত হয়ে কথা বলেছিলেনl মন্ত্রী শাজাহান খানকে নিয়ে বর্তমান সরকার এধরণের সমস্যায় এর আগেও কয়েকবার পড়েছেনl কিন্তু তবুও তিনি বহাল রয়েছেনl কিন্তু কেন?

নিরাপদ সড়ক নিয়ে আন্দোলন নুতন কোনো আন্দোলন নয়l এর আগেও কয়েকবার হয়েছেl কিন্তু এবারের মতো হয়নি কখনোl ঐসময় সরকার বিষয়টিকে গুরুত্ব দেয়নিl তখন কোনো পদক্ষেপ নিলে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রতিবৎসর হয়তো এতো প্রাণহানি হতো নাl বিভিন্ন মহল থেকে বার বার সমস্যাটা তুলে ধরা সত্ত্বেও সরকার থেকে কোনো কঠোর বেবস্থা গ্রহণ করা হয়নিl এখন দেখা যায় যে গলদটা খোদ প্রশাসনের মধ্যেই অবস্থান করছেl পুলিশের এই দুরবস্থার জন্য তাহলে দায়ী কে? স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, আই জি পি, না অন্য কেউ?

সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের কার্যকরী সভাপতি ও একইসাথে সরকারের মন্ত্রী শাজাহান খান তার পদ থেকে পদত্যাগ করবেন না বলে জানিয়েছেনl কি তার শক্তি? মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর চেয়েও কি তিনি ক্ষমতাবান? অবস্থা দেখে অনেকে আজ তাই বলছেনl বার বার সরকারকে বিপদের মুখে ঠেলে দেওয়া সত্ত্বেও তিনি মন্ত্রিত্বে আছেন তাহলে কি করে? সমালোচকেরা বলেন শাজাহান খান নৌকায় স্থান না পেলে মন্ত্রী হওয়া তো দূরের কথা সংসদ সদস্য পর্যন্ত হতে পারতেন কি না তাতে সন্দেহ রয়েছে l ৭২ থেকে ৭৫ ও তার পরবর্তীতে মন্ত্রী শাজাহান খান ও তার দলের ভূমিকার কথা কারই অজানা নয়l মাদারীপুরের জনগণ তার অতীত সম্পর্কে সবকিছুই অবহিতl এখানে নুতন করে কিছু বলার নেইl

বঙ্গবন্ধুর কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বর্তমানে এক বিরাট চেলেঞ্জের সম্মুখীনl আসছে নির্বাচনকে সামনে রেখে নানা অজুহাতে বিপক্ষ শক্তি মাঠে নামার চেষ্টা করতে পারেl ইতিমধ্যে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সাথে এদের অনেকেই ভেতরে ঢুকে পড়েছে বলে মিডিয়ায় প্রকাশিত হয়েছেl সরকারকে এবেপারে সতর্ক হতে হবেl যারা বিভক্ত, যারা দুর্নীতিবাজ, যারা একসময় মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে বিকৃত করেছে তারা আন্দোলনের কোনো ইস্যু নিয়ে এতদিন কিছুই করতে পারেনিl তারা এখন সুযোগ খুঁজবেl সুতরাং সময় থাকতে সরকারকে সাবধান হতে হবেl

শুনেছি মন্ত্রী শাজাহান খানের সবচেয়ে বড় শক্তি নাকি সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনl তার কোনো কিছু হলেই তারা নামবে রাস্তায়l সড়ক পরিবহন করবে ধর্মঘটl সমস্যায় পড়বে সরকারl বিনা লাইসেন্সে গাড়ি চালানো, অপ্রাপ্ত বয়ষ্ক ড্রাইভার, গাড়ির ফিটনেস সমস্যা ইত্যাদি সমস্যাগুলোকে কি সরকার এইকারণেই এড়িয়ে যাচ্ছে? তবে পর্যবেক্ষকমহল বলেন অন্য কথাl তাদের মতে দেশের সকল বাস ট্রাক, অন্নান্য যানবাহনের মালিক প্রশাসনের উর্ধতন কর্মকর্তা, ক্ষমতাসীন ও বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা এবং ক্ষমতাবান ধনশালী বেক্তিl একারণেই গাড়ির চালকেরা শত অন্যায় করা সত্ত্বেও বার বার পার পেয়ে যাচ্ছেl আমার প্রশ্ন আইন যদি সকলের কাছেই সমান হয় তাহলে বার বার আইন ভঙ্গ করা সত্ত্বেও তাদের বিচারের কাঠ গোড়ায় কেন দাড় করা হয় না? যে ফেডারেশন সরকারি আইন অমান্য করে, তাদের আবার বৈধতা থাকে কি করে?

একদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাতদিন পরিশ্রম করে নানা বাধা বিপত্তির সাথে লড়াই করে দেশকে এগিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছেন, অন্যদিকে তার সরকারের কিছু মন্ত্রী ও দলীয় নেতার অপকর্মের জন্য সবকিছুই ম্লান হয়ে যাচ্ছেl জাতির জনক বঙ্গবন্ধুও পড়েছিলেন এমনি এক অবস্থায়l তার আশেপাশের কিছু চাটুকার ও সুবিধাবাদীরা তাকে একটি বেষ্টনীর মধ্যে ঘিরে রাখার চেষ্টা করেl নেতাকে বাস্তবতার আসে পাশে আসতে দেয়নিl তিনি যা জিজ্ঞেস করতেন সবকিছুতেই পজেটিভ উত্তর পেতেনl কিন্তু সেদিন আর আজকের মধ্যে অনেক পার্থক্যl কারো কোথায় বিশ্বাস না করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে এখন নিজে থেকেই সবকিছু যাচাই বাছাই করতে হবেl তা না হলে সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের এতো সুযোগ সুবিধা দেওয়া সত্ত্বেও তাদের মধ্যে কেন এই দুর্নীতি?
এ যাত্রায় সকল দায়ভার গ্রহণ করে স্বইচ্ছায় মন্ত্রী শাজাহান খানকে পদত্যাগ করা উচিতl আর যদি তিনি স্বইচ্ছায় না করেন তাহলে জাতির জনকের কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে এই দায়িত্ব নিতে হবেl জনগণের ধর্যের বাঁধ ভেঙে গেছেl আর অপেক্ষা নয়l বর্তমান পরিস্থিতি মোকাবেলায় শেখ হাসিনাকে সঠিক সময়ে সিদ্ধান্তে আসতে হবেl ইতিমধ্যে শিক্ষার্থীদের দাবি দাওয়া সরকার মেনে নিয়েছেl এটামাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পরাজয় নয়l এটা হলো বঙ্গবন্ধু কন্যার মহত্বl এখন জনগণ মন্ত্রী শাজাহান খানের বেপারে আপনার সিদ্ধান্তের দিকে তাকিয়ে আছেl মন্ত্রী শাজাহান খানের ভুলের কারণে শিক্ষার্থীদের এই বিক্ষোভ আরো শক্তিশালী হওয়ার সুযোগ পেয়েছেl অন্যদিকে শিক্ষার্থীদের আইন নিজের হাতে তুলে না নিয়ে এখন ঘরে ফিরে যাওয়া উচিতl তা না হলে সরকার হয়তো কঠিন পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হতে পারেl আমাদের শ্লোগান হউক 
ধ্বংস না সৃষ্টি, 
সৃষ্টি সৃষ্টি

লেখক কাউন্টি কাউন্সিলর স্টকহোম কাউন্টি কাউন্সিল


ADVERTISEMENT

Contact Us: 8 Offtake Street, Leppington, NSW- 2569, Australia. Phone: +61 2 96183432, E-mail: editor@banglakatha.com.au , news.banglakatha@gmail.com

ADVERTISEMENT